প্রবাসে সমঅধিকারের জ্বরে বাঙালী পুরুষ..

কেন জানি আমাদের দেশের পুরুষদের এই শব্দটির  প্রতি অনেক আক্ষেপ। আমরা নারী জাতি নাকি কথায় কথায় যেখানে সেখানে সমঅধিকার চাই, কিন্তু কেন চাচ্ছি সেটা কিন্তু পুরুষজাতিরাও বুঝতে পারছে। আর বরাবরই এই সমঅধিকার প্রতিষ্ঠায় বাঁধা বা কাটা হয়ে আছে এই পুরুষজাতি। কিন্তু দেখুন সেই  পুরুষরা যখন প্রবাসে এসে নিজেদের “সমঅধিকার” নিয়ে প্রশ্ন  তুলে, তখন না হেসে…

আমরাই কিন্তু বৈষম্য সৃষ্টি করছি…..

আমাদের দেশে নারীর উন্নয়নের পথে বাধা সৃষ্টি করছে বৈষম্য, হয় সেটি কর্মক্ষেত্রে হোক কিংবা পরিবারে। হয়তো আজকে নারী হওয়ার কারনে এই শব্দটি আমাদের সাথে ওতোপ্রতোভাবে জড়িত, যা চাইলেইও বন্ধ করা যাবে না বা এর থেকে মুক্তিরও কোনো উপায় নেই। পুরুষতান্ত্রিক সমাজ হওয়াতে আমরা নারীরাই কিন্তু বৈষম্যের স্বীকার হচ্ছি কিন্তু বিলেতে আসার পর ধারনা কিছুটা পাল্টে…

উৎসবে কেন হালাল ও হারাম????

ধর্ম বিকৃত হতে হতে এখন কোন পর্যায়ে যাচ্ছে, তা আমরা নিজেরাও জানি না। তবে এইটুকু বলতে পারবো আজকে ধর্ম বিকৃত হচ্ছে কিছুশ্রেনীর মানুষ ও মৌলবাদীদের দ্বারা, যা স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছি প্রবাসে এসেও। সাধারনত এই দেশের মানুষ একমাত্র বড়দিনের সময় অনেক লম্বা একটা ছুটি পায় ঠিক আমাদের ঈদের মতো। যার কারনে সব ধর্মের মানুষরা চায় এই…

প্রবাসে আমিও সংখ্যালঘু তবে….!

আমরা সবসময় বলি আমাদের দেশে সব ধর্মের মানুষ শান্তিমতো বসবাস করছে, আদৌ কি তাই?? যে হারে সংখ্যালঘুদের ওপর অত্যাচার করা হচ্ছে, এই থেকেই তো প্রমান পাওয়া যায় আমাদের দেশে সংখ্যালঘুদের অবস্থান কতোটুকু। প্রতিক্ষণে ক্ষণে আমাদের দেশের হিন্দুরা এখন মারাত্মক আতংকের মধ্যে বসবাস করছে। আচ্ছা হিন্দুরা কি মানুষ নয়??? আমাদের সংখ্যালঘুদের দোষ একটাই সেটা হলো, তারা…

“প্রবাসে হিজড়া নয়, মানুষ হিসেবে পরিচিতি”

আমাকে ডাক্তার বলেছেন এখন থেকে প্রতিদিন ২০ মিনিট করে হাঁটতে, সুস্থ থাকার জন্য। বাসার  কাছের পার্কটা অনেক বড় হওয়াতে প্রতিদিনই আমার এখন বের হতে হয় হাঁটতে এই প্রচন্ড ঠান্ডার  মধ্যে। প্রথম দিন অনেক কষ্ট হয়েছিলো কিন্তু এখন আর খারাপ লাগে না কারন একজন বান্ধবী পেয়ে গিয়েছি, যে কিনা প্রতিদিন বিকেল বেলায় এই পার্কে হাঁটতে আসে।…

“অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ চাই”

এই লাইনটি এখন মিথ্যাতে পরিনত হয়েছে যে, “ আমার দেশ বাংলাদেশ, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ এবং শুধু তাই নয় সেই সাথে আরো বলি  হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ এই দেশে অনেক নিরাপদে আছে। ছি: ছি: আর কতো মিথ্যা বলবো!!! এই মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে সারা পৃথিবীতে আমরা প্রকাশ করি বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রতির দেশ।  এই যে  ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে দুই দফা…

প্রবাসের লোভে ফাঁদে জীবন

রুবিনা, আজ থেকে প্রায় ৭ বছর আগে এসেছিলো এই বিলেতে স্বামীর সংসার করতে। অনেক মেয়েদের কিন্তু স্বপ্ন থাকে বিদেশে থাকে ছেলেকে বিয়ে করা। ঠিক রুবিনারও এই রকম স্বপ্নই ছিলো। রুবিনা পড়তো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজবিজ্ঞানে। তার আশেপাশের অনেকেরই বিয়ে হয়েছে বিলেতে থাকা ছেলের সাথে। তারপর থেকে তারও ইচ্ছে হলো যদি কখনো সে বিয়ে করে তাহলে বিদেশে…