খাবারের ক্ষেত্রেই কেনো শুধু হালাল ও হারাম?

যখন দেশে ছিলাম তখন হালাল ও হারামের পার্থক্য টা খুব একটা নাড়া দিতো না কিন্তু প্রবাসে আসার পর প্রথমেই সবার মুখে একই কথা যাই করি না কেনো খাবারের ক্ষেত্রে কিন্তু হালাল ও হারাম অবশ্যই মেনে চলতে হবে। তখন আমার মধ্যে একটাই প্রশ্ন ঘুরপাক খেতো কেন শুধু খাবারের সময় মেনে চলতে হবে? আর অন্যান্য ক্ষেত্রে যে…

প্রবাস মানে হতাশা

অনেকের কাছে প্রবাস যেমন স্বপ্ন পুরুনের জায়গা আবার অনেকের কাছে হতাশার জায়গা। তবে সেটি বেশীরভাগ ক্ষেত্রে নারীদের সাথে হচ্ছে। আমরা প্রবাসের লোভে চলে আসি সব কিছু ছেড়ে কিংবা আবার আশার আলো পাওয়ার জন্য ছুটে আসি। এই লেখার মাধ্যমে তুলে ধরবো কয়েকজন নারীর জীবনের কাহিনী যারা এসেছিলেন আশার আলো ছোয়ার জন্য কিন্তু তার বিপরীতে অন্য জীবন…

পরকিয়ার চেয়ে চার বিয়ে উত্তম….

যেকোনো সম্পর্ক ভাঙনের পেছনে আমরা বরাবরই নারীকে দোষ দিয়ে থাকি। হতে পারে পুরুষতান্ত্রিক সমাজ হওয়াতে আজকে নারীদেরকে দোষের কাঠগডায় দাঁড়াতে হয় বরাবরই। তবে এটি অভ্যাসে পরিনত হয়ে গিয়েছে যেকোন সম্পর্ক ভাঙনের ক্ষেত্রে ভিলেন হিসেবে নারীকে উপস্থাপন। আর তাছাড়া সম্পর্ক যখন ভাঙ্গে তখন আমরা দুই সাইডের  কথা না শুনে একশ ভাগ দোষ দিয়ে থাকি নারীর উপর।…

যেই তনু সেই পারুল……..

পৃথিবীর কোনো দেশ কিন্তু নিরাপদ নয় বিশেষ করে নারীদের জন্য। আমাদের দেশে নারীদের যে অবস্থা তাতেই বোঝা যাচ্ছে আমরা সব দিক দিয়ে অবহেলিত, অত্যাচারিত ও নির্যাতিত। তবে আফসোসের বিষয় হচ্ছে এই যে, দেশের প্রধান বা সরকার নারী হওয়া সত্তেও প্রতি ক্ষনে ক্ষনে নারীরা শারীরিক ও মানসিক অত্যাচারের সম্মুখীন হচ্ছে। আর অত্যাচারের জন্য যদি বিচার চাওয়া…

“ফিফটি-ফিফটিতে কেনো পুরুষের আতংক?”

যে কোনো সম্পর্কের ক্ষেত্রে শেয়ারিং ও কেয়ারিং যে গুরুত্বপূর্ণ  ভূমিকা পালন করে, তা ইংরেজরা খুব ভালোভাবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তবে  এই শেয়ারিং ও কেয়ারিং এর আরো একটি নাম আছে, যা “ফিফটি-ফিফটি” নামে পরিচিত। আগে ভাবতাম এ কেমন ভালবাসা বা সম্পর্ক যেখানে “ফিফটি-ফিফটি” শব্দটি থাকবে। কারন আমরা তো এই দুটি শব্দের সাথে একেবারে অপরিচিত। আগে যখন কফি…

ব্রিটেন কিংবা বাংলাদেশ, পাল্টাবো কবে?

যেদিন থেকে জিমে যাওয়া শুরু হলো সেদিন থেকে নতুন নতুন মানুষের সাথে পরিচিত হচ্ছি, তবে বাঙালিদের পরিমান সেই তুলনায় অনেক কম। গত সপ্তাহে এক অদ্ভুত ঘটনা ঘটে গেল যা আমার মনে সারাক্ষণ নক করছে। সেই দিন পরিচয় হলো এক বাঙালী নারীর সাথে যার বয়স ৪৩। যেহেতু বাঙালী পেয়েছি সেহেতু মনের ভিতরে অনেক আনন্দ করছিলো। তারপর কথা…

কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছুক্ষণ

সেই দিন অনেক আগ্রহ ও উদ্দীপনা কাজ করছিলো কখন বিশ্ববিদ্যালয়টি দেখতে পাবো কারন তখন মনে হচ্ছিলো আর কিছুক্ষনের মধ্যে আমার সেই স্বপ্ন পুরূন হবে। কারনআমার মতো হয়তো অনেকেরই একই স্বপ্ন হয় অক্সফোর্ড কিংবা কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় দেখার। অবশেষে সেই অপেক্ষার অবসান হলো। যেহেতু সবারই জানা লন্ডনের যান্ত্রিক জীবনযাপন সম্পর্কে কিন্তু তারপরও মানুষ সমস্ত ব্যস্ততার মাঝেও সময়…